এবার দলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করতে চলেছেন বিজেপি নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি জানিয়েছেন, দলে থেকে অপমানিত হচ্ছেন ও অবজ্ঞা পাচ্ছেন

জন দেখেছেন : 32
0 0
পড়তে সময় লাগবে :3 মিনিট, 13 সেকেন্ড

বেঙ্গল এক্সপ্রেস নিউজ: এবার দলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করতে চলেছেন বিজেপি নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি জানিয়েছেন, দলে থেকে অপমানিত হচ্ছেন ও অবজ্ঞা পাচ্ছেন। সেই কারণে দল ত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বঙ্গ বিজেপির সহ-সভাপতি পদে রয়েছেন জয় বন্দ্যোপাধ্যায়।

ইতিমধ্যেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে নিজের সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে চিঠি দিয়েছেন জয়। সেই চিঠির শেষ লাইনে তিনি বিজেপি ছেড়ে দেওয়ার কথা উল্লেখ করেছেন। তবে কোন দলে যোগদান করছেন সেই বিষয়ে খোলাখুলি কিছু জানাননি জয়। ইতিমধ্যেই সরিয়ে দেওয়া হয়েছে জয়ের কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা। পাশাপাশি জাতীয় কর্মসমিতি থেকেও তাঁকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। এই বিষয়ে তিনি বলেছেন, ‘আমি বিজেপিতেই ছিলাম প্রথম থেকে। কিন্তু কিছু বিষয়ের জন্য দলের উপর খারাপ লাগা তৈরি হয়েছে। আমি খুবই দুঃখ পেয়েছি। আমায় জাতীয় কার্যনির্বাহী পদ থেকে সরিয়ে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে করা হয়েছিল। এখন তিনিও দলবদল করে নিয়েছেন। একাধিকবার আমি এই রাজ্যে মার খেয়েছি। তবুও গতকাল আমার নিরাপত্তা সরিয়ে নেওয়া হয়। সেই কারণে প্রধানমন্ত্রীকে আমি জানিয়ে দিয়েছি যে আমি নিজেকে বিজেপি থেকে সরিয়ে নিলাম। আমি মানুষের কাজ করি।

তাই যেই দলের সঙ্গে মানুষ রয়েছে আমি সেই দলে রয়েছি। যেই দল মানুষের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে সেই দল আমি ছাড়ছি।’ এই বক্তব্যের পরই তাঁর তৃণমূলে যোগ দেওয়ার জল্পনা আরও জোরালো হয়েছে। জয় আরও বলেছেন, ‘আমি ২০১৪ সাল থেকে জীবন বিপন্ন করে বীরভূম, মুর্শিদাবাদ ঘুরেছি। যখন কেউ ছিল না সেই সময়ও আমি সবটুকু দিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে কাজ করে গিয়েছি। এরপর ২০১৭ সালে নরেন্দ্র মোদির চোখে-চোখ রেখে আমি কলাইকুন্ডাই বিমানবন্দরে তাঁকে জানাই যে, আমি দলের হয়ে প্রচুর কাজ করি কিন্তু তারপরও আমায় অবহেলা করা হয়। আমি বিগত এক মাস অসুস্থ ছিলাম। দলের তরফে থেকে একটাও খোঁজ নেওয়া হয়নি আমার। তবে আমি এখনও বলছি কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব আমায় খুবই ভালোবাসেন। তাঁরা আমাকে বিজেপি থেকে সরিয়ে দেয়নি। আমি নিজেকে বিজেপি থেকে সরিয়ে নিয়েছি।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

Next Post

ভাইকে হারানোর দুঃখ ভুলতে অনাথ শিশুদের ভাইফোঁটা দিলেন বোন

Sat Nov 6 , 2021
বেঙ্গল এক্সপ্রেস নিউজ : নদীয়ার পায়রাডাঙার প্রিয়াঙ্কা রায় এবং তাঁর দাদা প্রীতম রায়- দু’জনেই ডাক্তারি নিয়ে পড়াশোনা করছিলেন। দাদা প্রীতম রায় মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজের ছাত্র। প্রিয়াঙ্কা এবং প্রীতম দু’জনেই বাইরে থাকতেন। সারা বছর যেখানেই থাকুক না কেন ভাইফোঁটার দিন দু’জনেই বাড়ি চলে আসতেন। দাদার দীর্ঘায়ু […]