উত্তর প্রদেশে কিলিং রাজ চলছে, লখিমপুরে কৃষক হত্যার ঘটনায় যোগী সরকারকে তীব্র আক্রমণ মমতার
Connect with us

দেশের খবর

উত্তর প্রদেশে কিলিং রাজ চলছে, লখিমপুরে কৃষক হত্যার ঘটনায় যোগী সরকারকে তীব্র আক্রমণ মমতার

Rate this post

বেঙ্গল এক্সপ্রেস নিউজ : ভবানীপুরে রেকর্ড ব্যবধানে জিতেছেন শুধু নয়, জয়ের হ্যাট্রিক করেছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রবিবারই ভোটের ফল ঘোষণা হয়েছে। তার পরের দিনই অর্থাৎ সোমবার ভবানীপুরের শীতলা মন্দির এবং গুরুদ্বারে পুজো দিলেন তিনি। নির্বাচনের আগেও এই দুই জায়গায় পুজো দিতে এসেছিলেন। জয়ের পরও এলেন। সঙ্গে ছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং সুব্রত বক্সি। গুরুদ্বার থেকে বেরিয়েই উত্তরপ্রদেশের ঘটনা নিয়ে বিজেপিকে তুলোধনা করলেন তৃণমূল নেত্রী।উত্তরপ্রদেশের লখিমপুর খেরির কৃষক হত্যার ঘটনার তীব্র নিন্দা করে যোগী সরকারকে আক্রমণ করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তিনি বলেছেন, ‘লখিমপুরে যা হয়েছে তা অমানবিক, দুর্ভাগ্যজনক। ওখানে নির্মমভাবে কৃষকদের হত্যা করা হয়েছে। নির্দয় অত্যাচার করা হয়েছে তাঁদের উপর।’ খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে প্রতিনিধি দল পাঠিয়েছিল তৃণমূল। সেই প্রতিনিধি দলে ছিলেন সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদার, দোলা সেন, প্রতিমা মণ্ডল, আবির রঞ্জন বিশ্বাস এবং সুস্মিতা দেব। তাঁদের ঢুকতে দেওয়া হয়নি বলেও অভিযোগ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেছেন, ‘এই সরকার সব জায়গায় ১৪৪ ধারা জারি করে। এরকম সরকারের জন্য জনসাধারণেরও ১৪৪ ধারা জারি করা উচিত। বাংলায় সবাই খুশি মতো চলে আসে। কিন্তু নিজেদের রাজ্যে কাউকে ঢুকতে দেয় না। উত্তরপ্রদেশে কিলিং রাজ চলছে।’ রবিবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অজয় মিশ্রর ছেলে আকাশ মিশ্রর গাড়ির ধাক্কায় আন্দোলনরত কৃষকদের মৃত্যুর অভিযোগ উঠতেই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে উত্তরপ্রদেশ সহ গোটা দেশ। দেশের সমস্ত রাজনৈতিক দল বিজেপি সহ যোগী সরকারের সমালোচনায় সরব হয়েছে।

তাই চাপে পড়ে মন্ত্রী পুত্রের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের হয়েছে। পাশাপাশি যোগী সরকার মৃত কৃষকদের জন্য ৪৫ লক্ষ টাকা ও চাকরি এবং আহতের জন্য ১০ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করেছে। সেই নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, ‘এটা বড় কোনও ব্যাপার নয়। সরকারের দায়িত্ব ক্ষতিপূরণ দেওয়া। কিন্তু কোনও ক্ষতিপূরণই মৃত্যুর থেকে বড় নয়।’ লখিমপুর খেরির ঘটনা নিয়ে সোমবার সকাল থেকেই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে জাতীয় রাজনীতি। কংগ্রেস নেতা ও বিধায়ককে নিয়ে চণ্ডীগড় রাজভবনের বাইরে অবস্থান-বিক্ষোভ করেন নভজ্যোৎ সিং সিধু। তার আগে রবিবার লখিমপুরে নিহত কৃষকদের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার পথে কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়ঙ্কা বঢরাকে আটক করে পুলিশ। সেখানেই অনশনে বসেছেন প্রিয়ঙ্কা। পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ সিং চন্নী সোমবার হেলিকপ্টারে লখিমপুরে যাওয়ার জন্য উত্তরপ্রদেশ সরকারের অনুমতি চাইলেও তা দেওয়া হয়নি। সমাজবাদী পার্টির নেতা তথা উত্তর প্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদবকেও লখিমপুরে যাওয়ার পথে আটকে দেয় পুলিশ।

Advertisement
Continue Reading
Advertisement