উত্তরবঙ্গের জেলাগুলোতে জারি হল বাড়তি সতর্কতা

Rate this post

বেঙ্গল এক্সপ্রেস নিউজ: গত মঙ্গলবার থেকে পাহাড় এবং সমতল মিলিয়ে উত্তরবঙ্গের সমস্ত জেলায় ভারী বৃষ্টির ফলে উত্তরবঙ্গ জুড়ে বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। ফলে একদিকে যেমন জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে অন্যদিকে মানুষের মধ্যে আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি হয়েছে। প্রশাসনের তরফ থেকেও বাড়তি সতর্কতা জারি করা হয়েছে। পাহাড়ে একটানা বৃষ্টির ফলে জল অনেকটাই বেড়ে যাওয়ায় তিস্তার বাধ থেকে জল ছাড়া হয়েছে। তার কারণে তিস্তা নদীর উপকূলবর্তী এলাকা জুরে জারি হয়েছে লাল সতর্কতা।

পাশাপাশি ভুটান পাহাড়ে বৃষ্টির ফলে জলঢাকা নদীর জলও বেড়েছে। প্রশাসনের তরফ থেকে বন্যা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তিস্তা নদীতে বন্যা হলে জলপাইগুড়ি, রাজগ্রাম এবং ময়নাগুড়ি প্লাবিত হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। ইতিমধ্যেই প্লাবিত হয়েছে জলপাইগুড়ির সারদাপল্লী এবং সুকান্ত নগর এলাকা। প্রশাসনের তরফ থেকে ইতিমধ্যে প্রায় দশ হাজার মানুষকে সরিয়ে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চলছে। জলপাইগুড়ির জেলাশাসক মৌমিতা গোদারা জানিয়েছেন, প্লাবিত এলাকার মানুষকে রাখার জন্য জেলার স্কুল এবং কলেজগুলিকে কাজে লাগানো হচ্ছে। উদ্ধার কাজে লাগানো হয়েছে বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী এবং সিভিল ডিফেন্স কর্মীদের ।

সবথেকে উদ্বেগজনক পরিস্থিতি ক্রান্তি ব্লকের বাসুসুরা এলাকায়। স্থানীয় মাস্টার পাড়ায় মাটির বাধের প্রায় ৫০ মিটার ভেঙে যাওয়ায় বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। অন্যদিকে, ভারী বৃষ্টির জেরে কোচবিহার এবং আলিপুরদুয়ার জেলাতেও বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। তোর্ষা নদীর জল অনেকটাই ফুলেফেঁপে উঠেছে। খবর পাওয়া গিয়েছে ভুটান সীমান্তের পাশে জয়গাঁ এবং মচিয়াবস্তি এলাকা প্লাবিত হয়েছে। তোর্ষার জল বাড়ার ফলে অনেক কৃষিজমি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তোর্ষা নদীতে হলুদ সতর্কতা জারি করা হয়েছে। রায়ডাক, মাথাভাঙা, মানসাই, ডুডুয়ার মতো নদীগুলোতেও জল বাড়ার জন্য স্থানিয় মানুষকে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ

Next Post

উত্তরাখণ্ডে মৃত্যু বেড়ে ৪২, নৈনিতালে আটকে থাকা পর্যটকদের ফিরতে আরও সময় লাগবে

Wed Oct 20 , 2021
বেঙ্গল এক্সপ্রেস নিউজ: মেঘভাঙ্গা বৃষ্টি, হড়পা বান এবং ধসে বিপর্যস্ত নৈনিতাল সহ গোটা উত্তরাখণ্ড। আর এই প্রাকৃতিক দুর্যোগের জেরে গতকালই নৈনিতালে ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছিল। সরকারি সূত্র অনুযায়ী মৃত্যুর সংখ্যাটা বুধবার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪২। দু’দিনের টানা বৃষ্টিতে গাড়োয়ালের থেকেও বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কুমায়ুন অঞ্চল। আর […]

আপনার পছন্দের সংবাদ